You cannot copy content of this page

দুই বাংলার যৌথ প্রযোজনায় বাংলা ছবি “গৌধুলি বেলা”য় প্রধান দিহান ও রুমা

বিনোদন রিপোর্টঃ দুই বাংলার যৌথ প্রযোজনার চলচ্চিত্র মানেই একটা দারুণ কিছু।একজন অভিনেতা হিসেবে সর্বোচ্চ সাফল্যের প্রধান চরিত্রে এবার বাংলাদেশের মডেল ও অভিনেতা দিহান হাজারী।এবার বাংলা ছবি “গোধুলী বেলা”য় প্রধান চরিত্রে নায়কের ভুমিকায় দেখা যাবে উঠতি এই অভিনেতাকে। এই চলচ্চিত্রের মাধ্যমে পরিচালক হিসেবে নিজেকে আত্মপ্রকাশ করছে কলকাতার ছোট পর্দার সংগ্রামী পরিচালক দেবা মন্ডল। ছবির এই চমৎকার গল্পকে চিত্রনাট্যে রুপ দিয়েছেন পরিচালক নিজেই। ছবিতে মোট ৬টা গান আছে যার সংগীত পরিচালনা করেছেন মোশারফ হোসেন সেতু (বাংলাদেশ)।

ছয়টি গানের মধ্যে টাইটেল গানটি গেয়েছেন বাংলাদেশের এই সময়ের আলোচিত কণ্ঠশিল্পী পূর্ণমিলন। গ্রামীণ প্রেক্ষাপটের গল্পটিতে কাল্পনিক দুই জনমের একটি লেখকের চরিত্র ফুটিয়ে তোলা হয়েছে।যেখানে রবি চরিত্রে লেখকের ভুমিকায় অভিনয় করেছেন দিহান হাজারীর সাথে অপূর্ব অভিনয়ের সাথে ফুটিয়ে তুলেছেন রুমা ভদ্র। সম্প্রতি ছবির নব্বই শতাংশ শুটিং কলকাতা আসাম সহ পশ্চিমবঙ্গের সুন্দরবনে বিভিন্ন লোকেশনে সম্পন্ন হয়েছে।

ছবিতে দিহান হাজারীর বিপরীতে নায়িকা হিসেবে কাজ করেছেন কলকাতার রুমা ভদ্র ও বাংলাদেশের উঠতি মডেল অভিনেত্রী মিষ্টি মাতবর। ছবিটিতে অন্যান্য চরিত্রে অভিনয় করেছেন, আসামের প্রভাত রায়,সুব্রত দাস,বর্নালী বিশ্বাস, শিউলী দাস সহ অনেকে।

“গোধুলী বেলা” দুই বাংলা সহ ভারতে অন্যান্য প্রদেশে একযোগে মুক্তির পথে।ছবি সম্বন্ধে জানতে চাইলে দিহান হাজারী বলেন, যে কোনো অভিনেতার জন্য বড় পর্দায় কাজ করাটা স্বপ্নের মত।আমার ও এই কাজের মাধ্যমে নিজের স্বপ্নের দ্বার প্রান্তে নিজেকে দেখতে পেলাম। তাছাড়া এমন চমৎকার গল্পে দুই বাংলার অভিনেতা, অভিনেত্রী ও কণ্ঠশিল্পীদের সমন্বয় এযেন এক দারুণ কম্বিনেশন। আমি এমন চমৎকার কাজে আমাকে বিশেষ চরিত্রে কাজ করানোর জন্য পরিচালক দেবাদাকে অসংখ্য ধন্যবাদ জানাচ্ছি। দাদার সাথে আমার ফেসবুকে পরিচয়। পরবর্তী তে কলকাতা গিয়ে অডিশনের মাধ্যমে আমি এই কাজের যোগ্যতা অর্জন করি। আমি আশা করছি “গোধুলী বেলা” ছবিটি এপার ওপার দুই বাংলায় বেশ জনপ্রিয়তা পাবে।

ছবি নিয়ে রুমা বলেন, বহুদিনের একটা স্বপ্ন ছিল নিজেকে নায়িকা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করবো যা আজ দেবাদার জন্য সফল হল।বাংলার গ্রামের একটা মিষ্টি গল্প। বাংলার মেয়েরা কিভাবে তাদের জীবন সংগ্রামের মধ্যে আনন্দ, প্রেম, ভালোবাসা খুঁজে পায় তার গল্প। ছবির পটভুমিকা খুবই ভাল।এছাড়া বিভিন্ন টেলিভিশনে সিরিয়ালের কাজ করছি তবে ছায়াছবি করা মানে একটা আত্মতুষ্টি। সিরিয়ালে জনপ্রিয়তা বাড়ে ঠিকই কিন্তু সিনেমার আমেজ আর আনন্দটা আলাদা। আগামীদিনে দেবাদা আরও ভাল কাজ করবে আশা রাখবো।সিনেমার ছবি সংগৃহীত এবং রুমা ভদ্রের ছবি : রাজেন বিশ্বাস।

মন্তব্য করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *