You cannot copy content of this page

রক্তসঙ্কটের মোকাবিলায় বিধায়ক ফিরদৌসীর উদ্যোগে দ্বিতীয় পর্বের রক্তদান শিবিরে গড়িয়ায় রক্তদান করলেন ২৫০, তুলে দেওয়া হল গাছ

অম্বর ভট্টাচার্য, এবিপিতকমা, সোনারপুর, ২১শে জুন ২০২০ : গ্রীষ্মকালীন রক্তসঙ্কট প্রতিবারই থাকে কিন্তু এবার বাড়তি হল করোনা সংক্রমণের কারণে রক্তসঙ্কট। এই দুর্যোগের সাথে আবার চিনের সাথে যুদ্ধ যুদ্ধ পরিস্থিতি। সোনারপুর উত্তর বিধানসভার বিধায়ক ফিরদৌসী বেগমের উদ্যোগে ১৫ই জুন কামালগাজীতে প্রথম পর্বের রক্তদান শিবিরের আয়োজন করা হয়েছিল আর আজ গড়িয়া স্টেশনে ৪৫ বাস স্ট্যান্ডে সেই রক্তদান শিবিরের দ্বিতীয় পর্ব অনুষ্ঠিত হল। ভারতের লাদাক সীমান্তে ভারতীয় জওয়ানদের উপর চিন সেনাদের আগ্রাসী মনোভাবের ফলে ২০ জন জওয়ানের মৃত্যু হয়েছে চিন সেনাদের হাটে।দেশ রক্ষার কাজে এই বীর সন্তানদের মৃত্যুতে বিধায়ক ফিরদৌসী বেগম শোক প্রকাশ করেন এবং অনুষ্ঠান শুরুর আগে সকল মৃত জওয়ানদের আত্মার শান্তিকামনা করে মোমবাতি জালান। বিধায়ক ফিরদৌসী বেগমের সাথে মোমবাতি জ্বেলে বীর সন্তানদের আত্মার শান্তি কামনা করেন রাজপুর সোনারপুর পৌরসভার প্রশাসকমন্ডলীর সদস্য নজরুল আলি মন্ডল, দঃ ২৪ পরগণা জেলা আই এন টি টি ইউ সি সভাপতি শক্তিপদ মন্ডল ও তাঁর স্ত্রী, সোনারপুর পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি প্রবীর সরকার, সোনারপুর তৃণমূল যুব কংগ্রেসের সভাপতি পাপাই দত্ত, পিন্টু দেবনাথ, শ্রীমন্ত নস্কর, শীমা মজুমদার, সুকান্ত মন্ডল, জয়ন্ত সেনগুপ্ত সহ অনেকে।

বিধায়ক ফিরদৌসী বেগম আজকের এই দ্বিতীয় পর্বের রক্তদান শিবিরের সূচনা করেন এবং তিনি তাঁর বক্তব্যে বলেন, আজ দেশের তথা রাজ্যের চরম দুর্যোগের দিন। সকলের উচিত রাজনীতি ভুলে এই দুর্যোগে মানুষের পাশে দাঁড়ানো। আমরা করোনা লকডাউন থেকে আমফানের তান্ডবে ক্ষতিগ্রস্থ ও আজ রাজ্যে গ্রীষ্মকালীন রক্তসঙ্কটের সময় অসহায় মানুষের পাশে থাকার চেষ্টা করছি কারণ আমরা আমাদের রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিকে দেখছি মানুষের জন্য কতটা মানবিক মানসিকতা নিয়ে রাস্তায় নেমে জীবনকে উপেক্ষা করে কাজ করছেন। অনুষ্ঠানে শক্তিপদ মন্ডল বলেন, যে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি সেই রাজ্যের মানুষের কখনই কোন দুর্যোগ কাৎ করতে পারবে না। এদিন মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন গড়িয়া সহ সোনারপুরের বহু নেতৃত্ব। মঞ্চে বক্তব্য রাখেন নজরুল আলি মন্ডল, বিশ্বজিত দাস (নন্দ), অশোক হোর, প্রবীর সরকার সহ অনেকে।

এদিন গড়িয়া টাউন সহ খেয়াদহ ১ ও ২ নং গ্রাম পঞ্চায়েত ও কামরাবাদ পঞ্চায়েত থেকে প্রায় ২৫০ জন রক্তদান করেন যার মধ্যে মহিলাদের সংখ্যা ছিল উল্লেখজনক। যতজন রক্তদানের জন্য উপস্থিত হয়েছিলেন তার অধিকাংশ রক্তদান করেন। প্রথম ৪৫ মিনিটে রক্তদাদার সংখ্যা ছিল ১২৩ জন যা প্রশংসার দাবি রাখে।

সকল রক্তদাতাদের হাতে মেহগিনি গাছের চারা তুলে দেন বিধায়ক ফিরদৌসী বেগম, নজরুল আলি মন্ডল, পাপাই দত্ত ও প্রবীর সরকার। এছাড়া সকল রক্তদাতাদের দেওয়া হয় একটি স্যানিটাইজার, একটি মাস্ক, একটি পিপিই কিট। এদিন গড়িয়া স্টেশনের রাস্তায় ৬টি মোবাইল ভ্যানে রক্তদান পর্ব চলে।

আজকের এই মহতি অনুষ্ঠানে রাজপুর সোনারপুর পৌরসভার গড়িয়া স্টেশনের কোন বিদায়ী পৌর প্রতিনিধিদের চোখে পড়ল না। তাঁরা কেন নিজেদের এমন একটা অনুষ্ঠানে বিরত রাখলেন তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে অনেকের মনে। তবে এই অনুষ্ঠান গড়িয়া টাউন তৃণমূল কংগ্রেস, গড়িয়া টাউন যুব তৃণমূল কংগ্রেস, গড়িয়া টাউন মহিলা তৃণমূল কংগ্রেস, গড়িয়া টাউন জয়হিন্দ বাহিনী ও গড়িয়া টাউন তৃণমূল ছাত্র পরিষদের যৌথ উদ্যোগে সাফল্য লাভ করে।সমগ্র অনুষ্ঠানের সঞ্চালনার দায়িত্বে ছিলেন সোনারপুর তৃণমূল ছাত্র পরিষদ সভাপতি সমরজিত ব্যানার্জি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *