You cannot copy content of this page

এবার পুজোয় নতুন আঙ্গিকে পিছিয়ে থাকা শিশুদের নিয়ে খাদিমসের “লেটস টেক এ স্টেপ” কর্মসূচীতে শ্রাবন্তী

অম্বর ভট্টাচার্য, এবিপিতকমা, কলকাতা, ১৯শে সেপ্টেম্বর ২০১৯ : এবারের শারদীয়ায় খাদিম সংস্থা এক অভিনব কর্মসূচী গ্রহণ করল, যার নাম দিয়েছে “লেটস টেক এ স্টেপ”। এই কর্মসূচীর মাধ্যমে সারা কলকাতায় ৫টি খাদিমের শোরুমে পুরানো জুতো জোড়া সংগ্রহ করা হয়। পুরানো মানে যা ব্যবহার যোগ্য নয় এমন জুতো নয়। সেই সব জুতো নিয়ে তাকে মেরামত ও পালিশ করে সমাজের পিছিয়ে পড়া শিশুদের ও দুঃস্থ মানুষদের তুলে দেওয়া হবে ২০-২৩শে সেপ্টেম্বর শহরের ৫টি নির্ধারিত কেন্দ্রে।প্রথমদিন এই জুতো দেওয়া হবে নিমতলা ঘাটে বলে জানানো হয়। আজ কালিকাপুরে অবস্থিত ক্যালকাটা পাবলিক স্কুলে খাদিমের পক্ষ থেকে উপস্থিত ছিলেন অমিত গোপ (মার্কেটিং হেড), গীতা ভেঙ্কটকৃষ্ণন (হোপ ফাউন্ডেশনের ডিরেক্টর) এবং অভিনেত্রী শ্রাবন্তী চ্যাটার্জি।

অমিত গোপ জানান, এই কর্মসূচীর মূল ভাবনা খাদিম কর্তা সিদ্ধার্থ রায় বর্মন ও তাঁর সুযোগ্য পুত্র ঋত্বিক রায় বর্মনের যা প্রাথমিক ভাবে শুরু হয় তিন মাস আগে। খাদিম কর্তা সমাজের সেই সব শিশু ও শ্রমিকদের কথা মাথায় নিয়ে এই কর্মসূচী শুরু করেছেন যাদের পায়ে আজও পর্যন্ত কোন জুতো নেই তাদের জন্য। গত তিন মাসে সারা কলকাতা থেকে ব্যবহার যোগ্য ২২৫৯ জোড়া জুতো সংগ্রহ হয়েছে এবং এর সাথে খাদিম নিজের তরফ থেকে আরও এক হাজার জুতো জোড়া দান হিসেবে তুলে দিচ্ছেন। এই কর্মসূচী শুধুমাত্র খাদিমের একার কৃতিত্বে সম্ভব হয় নি, এই কর্মসূচীতে অংশগ্রহণ করেছে রোটারি ক্লাব অফ কলকাতা ইনারসিটি এবং হোপ ফাউন্ডেশন। একই সাথে তিনি এমনও জানান এই কর্মসূচীকে আরও বেশি জনপ্রিয় করে তুলেছেন অভিনেত্রী শ্রাবন্তী চ্যাটার্জি কারণ তিনি তাঁর ফেসবুক পেজে এই কর্মসূচীর কথা ঘোষণা করাতেই মানুষ আরও বেশি উৎসাহিত হয়েছেন পুরনো জুতো দেওয়ার জন্য।প্রাথমিক স্তরে আমাদের লক্ষ্য আগামীদিনে বাংলায় কেউ জুতো ছাড়া চলবে না।পরবর্তীতে আমরা ভারতের প্রধান শহরগুলোতে এই কর্মসূচী পৌঁছে দেবো। ইতিমধ্য দক্ষিণের বহু রাজ্য থেকে যোগাযোগ করতে শুরু করেছে।

অভিনেত্রী শ্রাবন্তী চ্যাটার্জি বলেন, এই কর্মসূচী সত্যিই আমায় খুব ছুঁয়ে গেছে। আমাদের সকলের বাড়িতে পুরানো বহু জুতো থাকে যা আমরা ব্যবহার করি না কিন্তু সমাজের অনেক মানুষ আছে যারা সেই জুতো পায়ে দিয়ে উপকৃত হতে পারে। আমি সকলকে বলবো নিজের আশেপাশের মানুষদের এই কর্মসূচীর কথা বলুন আর এই কর্মসূচীকে সফল করুন। আজকে ক্যালকাটা পাবলিক স্কুলে প্রায় ২০০ জন শিশুর হাতে সেরকম পুরানো জুতোকে মেরামত করে তুলে দিয়ে তাঁদের মধ্যে হাঁসি ফুটিয়েছে। প্রচারে পার্ফেক্ট রিলেশান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *