You cannot copy content of this page

নরেন্দ্রপুর থানা গোটা গড়িয়া স্টেশনে টহলদারির সাথে নজরদারি চালাচ্ছে, কিন্তু মানুষের নেই হেলদোল

অম্বর ভট্টাচার্য, এবিপিতকমা, সোনারপুর, ১২ই মে ২০২০ : সরকারি নির্দেশিকায় বলা হয়েছে বাজার থেকে মুদির দোকান সব খোলা থাকবে সকাল ৬টা থেকে সকাল ১০টা পর্যন্ত। কিন্তু ব্যতিক্রম গড়িয়া স্টেশন চত্বর কারণ এখানে দোকান থেকে বাজার প্রায় ১২টা পর্যন্ত খোলা থাকে। এমনকি দকানপাট তো বেলা ১টা পর্যন্ত খোলা থাকে। এই নির্দেশিকা দেওয়া হয় বিশেষত রাজপুর সোনারপুর পৌরসভার ২, ৩ ও ৬ নং ওয়ার্ড সহ গড়িয়া স্টেশন রোড সংলগ্ন এলাকায়।

পুলিশ প্রতিদিন গড়িয়া স্টেশন অঞ্চলে টহলদারির সাথে নজরদারি চালাচ্ছে যাতে ১০টার পর কোন বাজারের দোকান না খোলা থাকে। কিন্তু মানুষ ছুটির মেজাজে বেলা ১০টার সময় হেলে দুলে বাজারে আসছে বাজার করতে। এতে মানুষের জমায়েত বাড়ছে, মানছে না সামাজিক দুরত্ব। মাছের দোকানে, মাংসের দোকানে মানুষের ঢল নেমে যাচ্ছে। পুলিশ নাজেহাল হয়ে যাচ্ছে এই পরিস্থিতিকে সামাল দিতে। এবার শান্তিনগরের শিবতলায় সদ্য করোনা আক্রান্ত হয়ে একজনের মৃত্যুর পর পুলিশের নজরদারি আরও বাড়বে।সাধারণ মানুষের সাথে ব্যবসায়ীদেরও সেভাবে কোন হেলদোল নেই।তাঁরা যদি নিজেদের নিয়মের মধ্যে দিয়ে চলে তবে ক্রেতারা অনেকটা নিয়মের মধ্যে চলে আসে। কিন্তু যখন বাজার দোকান খোলা থাকছে তখন তো ক্রেতা আসবেই। মানুষের মধ্যে এখন সেভাবে ভীতি সঞ্চয় হয় নি যে আগামীদিন কতটা মারাত্মক হতে চলেছে। সরকার স্বাস্থ্য বিধি দিয়েছে, প্রশাসন সচেতন করছে, দলীয় নেতৃত্ব বারবার করে সজাগ করছে, জনপ্রতিনিধিরা বলে চলেছে কিন্তু কে শোনে কার কথা।ভাবটা এমন প্রশাসনের গুরু দায়িত্ব মানুষকে নিরাপদে রাখার, মানুষের কোন দায় নেই।মানুষ জানে তাদের কথাই শেষ কথা। যেমন ইচ্ছে চলবো, কিছু হলেই তখন খোঁজ পড়ে সরকারের, প্রশাসনের আর জনপ্রতিনিধিদের।আগামীকাল থেকে নজরদারির উপর জোর দেবে পুলিশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *