You cannot copy content of this page

বর্ধমানের ১৮ নং ওয়ার্ডে বিদায়ী পৌরপিতা প্রদীপের উদ্যোগে মধ্যরাতে স্বাধীনতা দিবস

অম্বর ভট্টাচার্য, এবিপিতকমা, বর্ধমান, ১৫ই আগস্ট ২০২০ : ভারতের স্বাধীনতা নিয়ে বলতে গেলে প্রথম প্রশ্ন ওঠে ১৯৪৭ সালে কেন ১৫ই আগস্টে ভারতের স্বাধীনতার দিন নির্ধারণ করা হয়েছিল।তার উত্তরে যা অনেকের জানা নেই যে যখন পাকিস্থানের স্বাধীনতা হয় ১৪ই আগস্ট তখন ভারতের ১৫ই আগস্ট কেন হল? আসল রহস্য হল সেই সময় ব্রিটিশ ভাইসরয় মাউন্ট ব্যাটন নিজে দায়িত্ব নিয়ে দিন নির্ধারণ করেছিলেন কারণ তাঁর কাছে ১৫ তারিখটার সাথে একটা বড় স্মৃতি জড়িয়ে ছিল।১৫ তারিখে ভারতের পক্ষে জাপানি সৈন্য রেঙ্গুন হয়ে ইমফলে পৌঁছায় তখন তাঁরা ইংরেজ সেনাদের হাতে নিজেদের আত্মসমর্পন করে। আর তাই যখন ভারতের স্বাধীনতার প্রস্তাব দেওয়া হয় তখন মাউন্ট ব্যাটন বলেন ভারতের স্বাধীনতার দিন হবে ১৫। কিন্তু একই দিনে ভারত ও পাকিস্থানের স্বাধীনতা হওয়ার কথা ছিল। সেই সময়ের ভারতের শাস্ত্রীয় বিশারদেরা যুক্তি দেন ১৪ তারিখ হল ভারতের জন্য শুভ কিন্তু ১৫ তারিখ নয়। মাউন্ট ব্যাটন বলেন ভারতের দিন শুরু হয় সূর্য উদয়ের সাথে আর ইংরেজদের দিন শুরু হয় রাত ১২টার পর। সেই হিসাবে যদি রাত ১২টায় স্বাধীনতা হয় সেক্ষেত্রে দুই দেশের ঐতিহ্য বজায় থাকবে। ভারতীয় মতে রাত ১২টা মানে ১৪ই আগস্ট বহাল থাকলো আর ইংরেজি মতে রাত ১২টার পর মানে ১৫ই আগস্ট। কিন্তু কেউ তো আর রাত ১২টায় স্বাধীনতা উদযাপন করবে না তাই সকালেই করবে সুতরাং সেই থেকে ১৫ই আগস্ট দিনটাকে স্বাধীনতা দিবস হিসাবে পালিত হয়ে আসছে। কিন্তু বাংলায় প্রথম মধ্যরাতে স্বাধীনতা প্রথা চালু করেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি।

সেই প্রথাকে মান্যতা দিয়ে প্রতিবারের মত এবারও নিজের দলীয় কার্যালয়ে মধ্যরাতে স্বাধীনতা দিবস পালন করেন বর্ধমান পৌরসভার ১৮ নং ওয়ার্ডের বিদায়ী পৌরপিতা প্রদীপ রহমান।এই বিশেষ দিনে ওয়ার্ডের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ও কৃতি ছাত্রচাহত্রীদের সম্বর্ধিত করা হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিদায়ী পৌরপিতা প্রদীপ রহমান, জেলা যুব তৃণমূল কংগ্রেসের রাসবিহারী হালদার, জেলার সাধারণ সম্পাদক খোকন দাস, আরেক বিদায়ী পৌরপিতা সাহাবুদ্দীন খান, তৃণমূলের কার্যকরি সভাপতি কামিজ রসুল সজ অনেকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *