You cannot copy content of this page

মুখ্যমন্ত্রীর আবেদনকে মান্যতা দিয়ে বিধায়ক ফিরদৌসীর হাতে ত্রাণ তহবিলে অর্থ সাহায্য করলেন মিঠু

অম্বর ভট্টাচার্য, এবিপিতকমা, সোনারপুর, ১৮ই এপ্রিল ২০২০ : করোনার থাবায় সারা বিশ্ব এখন ক্লান্ত। কিন্তু ক্লান্ত নন এই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। যখন বিশ্বের সব থেকে উন্নত দেশের রাষ্ট্র প্রধানরা মৃত্যু মিছিলের জেরে নিরাশ হয়ে গেছেন তখনও এই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মানুষের কথা চিন্তা করে করোনা মোকাবিলার জন্য লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন যাতে অধিক সংখ্যক মানুষ মারা না যায়। তিনি সকলকে এই মহামারীকে মোকাবিলা করার জন্য অর্থ সাহায্যের প্রার্থনা জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন কেউ যদি ৫ টাকাও দেয় আমি আনন্দের সাথে তা গ্রহণ করবো।

সেই আবেদনে সাড়া দিয়ে রাজপুর সোনারপুর পৌরসভার ৪ নং ওয়ার্ডের সভাপতি হিমাংশু দে (মিঠু) নিজস্ব তহবিল থেকে সোনারপুর উত্তর বিধানসভার বিধায়ক ফিরদৌসী বেগমের হাতে ২০০০০ টাকার চেক তুলে দেন স্টেট এমার্জেন্সি রিলিফ ফান্ডের নামে। বিধায়ক ফিরদৌসী বেগম ইতিমধ্যে তাঁর বিধানসভা থেকে বিভিন্ন ক্লাব ও ব্যক্তিগত অর্থ সাহায্য গ্রহণ করেছেন যার মোট অঙ্ক এই পর্যন্ত দাঁড়িয়েছে ৩৩ লাখ টাকা। তিনি টার্গেট রেখেছেন মোট ৫০ লাখ টাকা করোনা মোকাবিলার জন্য মুখ্যমন্ত্রী ত্রাণ তহবিলে একসাথে করে তুলে দেবেন। এছাড়া বিধায়কের নিজস্ব অর্থ সাহায্য তো আছেই।

এব্যাপারে মিঠু জানায়, মানুষের এখন দুর্দশা চলছে, এই সময়ে মানুষের পাশে দাঁড়ানোটা একান্ত কাম্য। মুখ্যমন্ত্রী যেভাবে লড়াই চালাচ্ছেন এই মহামারীকে মোকাবিলা ক্রার জন্য আমাদের সকলের উচিত তাঁর মানসিক শক্তি বৃদ্ধি করা। এই অর্থ সাহায্য ছাড়াও আমি নিজের ব্যক্তিগত উদ্যোগে বহু অসহায় মানুষকে রোজ খাদ্য সামগ্রী দিয়ে সাহায্য করে চলেছি।আমাদের দলীয় অনেক অসহায়, রজগারহীন কর্মীদেরও খাদ্য সামগ্রী সরবরাহ করে সাহায্য করছি। আমি যেই ক্লাবের সাথে যক্ত সেই ক্লাবের থেকেও অর্থ সাহায্য নিয়ে এলাকায় বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্য সামগ্রী দিয়ে সহযোগিতা করা হবে। যদি এতেও অভাব দেখা যায় আমি পরিচিত কয়েকজনকে বলে রেখেছি যাতে তাঁরা মানুষের এই দুর্জোগের সময় পাশে দাঁড়ানোর জন্য আমায় আর্থিক সাহায্য করে। এছাড়া এই ওয়ার্ডের পৌরপিতা বিভাস মুখার্জি নিজে উদ্যোগ নিয়ে খাদ্য সামগ্রী দিয়ে ১৩টা বুথের মানুষের পাশে থাকছেন।মানুষের এই দুর্জোগের সময় যতদিন সামর্থ থাকবে ততদিন পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করবো বলে জানান মিঠু।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *