You cannot copy content of this page

কলকাতায় তামাকজনিত মৃত্যু কমাতে রাজ্য সরকারকে সিওটিপিও চালু করার ফের আর্জি জানালো টোবাকো ফ্রি ওয়েস্ট বেঙ্গল ক্যাম্পেন ফোরাম

অম্বর ভট্টাচার্য, এবিপিতকমা, কলকাতা, ১৫ই জানুয়ারি ২০২০ : এমন এক যুগে, যখন ‘ক্লিন সিটি, গ্রিন সিটি’ আজকের দিনে পরিণত হয়েছিল, তখন তামাকজাত পণ্য ভারতের মত প্রাণবন্ত দেশে সবচেয়ে বড় বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে।পশ্চিমবঙ্গ, এমন একটি রাজ্যে যেখানে তামাক আইনত নিষিদ্ধ, এটিও আলাদা নয়। এক দশক আগে, গ্লোবাল অ্যাডাল্ট টোব্যাকো সার্ভে ইন্ডিয়া প্রাপ্ত তথ্যে দেখা গেছে যে পশ্চিমবঙ্গে ১৫ বছর বয়সের উপরে প্রাপ্ত বয়স্কদের ৩৬.৩% তামাক ব্যবহার করেছেন। আসলে, সেই সময় ২১% প্রাপ্তবয়স্ক ধূমপায়ী এবং ২২% ধূমপায়ী তামাক ব্যবহার করেছিলেন। টোবাকো ফ্রি ওয়েস্ট বেঙ্গল ক্যাম্পেন ফোরাম কলকাতা শহরকে স্বাস্থ্যকর রাখতে জনসচেতনতা এবং অবিলম্বে তার বিরুদ্ধে সিওটিপিএ ২০০৩ মারফৎ ব্যবস্থা নিতে আবেদন জানিয়েছে যাতে কলকাতা শহর স্বাস্থ্যকর, পরিষ্কার ও সবুজ রাখা সম্ভব হয়। সাম্প্রতিক কলকাতাকে তামাকমুক্ত করার আবেদন নিয়ে প্রেস ক্লাবে টোবাকো ফ্রি ওয়েস্ট বেঙ্গল ক্যাম্পেন ফোরাম এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছিল।আলোচনায় উপস্থিত ছিলেন ডাঃ শৈবাল বন্দ্যোপাধ্যায়, ডাঃ মহঃ আরিফ ও ডাঃ গৌতম মুখার্জি।

গত বছর,ভারতবর্ষের খাদ্য সুরক্ষা আইনের অধীনে গুটকা ও প্যান মশালার উৎপাদন,সংরক্ষণ,বিতরণ ও বিক্রয়ের উপর পশ্চিমবঙ্গ সরকারের সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞা ছিল। এই পদক্ষেপটি একটি তামাক মুক্ত রাষ্ট্রের জন্য প্রকৃতপক্ষে একটি বিশাল পদক্ষেপ ছিল।যদিও নাগরিকদের মধ্যে সচেতনতার ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য পরিমাণে বৃদ্ধি পেয়েছে,তবুও তামাকের সমস্ত বিপজ্জনক স্বাস্থ্যঝুঁকির বিরুদ্ধে মানুষের জীবন রক্ষার জন্য এখনও অনেক কিছু করা প্রয়োজন। ২০১১ সালে পাবলিক হেলথ ইনফরমেশন এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রনালয়ের যৌথ উদ্যোগে একটি প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী স্বাস্থ্য বিষয়ক অর্থনৈতিক সমস্যা সম্পর্কিত ভারত এবং ভারতে হু সংস্থার সমীক্ষায় বলা হয়েছে তামাক জনিত রোগে পশ্চিমবঙ্গের অর্থনৈতিক বোঝা হয়েছে ৩,৪৪০ কোটি টাকা।ক্যান্সার, শ্বাসকষ্টজনিত রোগ এবং টিবির কারণে পশ্চিমবঙ্গের অর্থনৈতিক বোঝা ছিল ১৩৩২ কোটি টাকা।
জিএটিএস - ২ (গ্লোবাল অ্যাডাল্ট টোব্যাকো জরিপ) ২০১৬-১৭ সালে সর্বশেষ পরিসংখ্যান অনুসারে, ৫.৩% মানুষ এখনও স্বাস্থ্যসেবায় দ্বিতীয় হাতের ধূমপানের শিকার হন। এ বিষয়ে বেঙ্গল অনকোলজি ফাউন্ডেশনের সেক্রেটারি ডাঃ গৌতম মুখোপাধ্যায় মন্তব্য করেন,‘সরকারী ও বেসরকারী সকল স্বাস্থ্যসেবা সুবিধাকে তামাকমুক্ত স্বাস্থ্যসেবা সুবিধা হিসাবে ঘোষণা করা সবার প্রথম দরকার।’ সিওটিপিএ ২০০৩ অনুযায়ী নিয়ম লঙ্ঘনের বিষয়টি কড়া হাতে বিবেচনা করা উচিত এবং বর্তমানে কলকাতা সিওটিপি-র ধারা 4 অনুযায়ী চালান প্রয়োগ করা দরকার, যাতে সমস্ত প্রকাশ্য স্থানে ধূমপান নিষিদ্ধ করে।

শহরের বিশিষ্ট চিকিৎসক অনকোলজিস্ট ডাঃ মহঃ আরিফ তামাক সেবনের স্বাস্থ্যের ক্ষতির কথা উল্লেখ করেন। তিনি আরও সাবধান করে দিয়ে বলেন,‘আমাদের বুঝতে হবে যে তামাক সেবনের ফলে কলকাতার তরুণ প্রজন্মের উপর কীভাবে প্রভাব ফেলছে এবং তা আমাদের অন্তর্নিহিত করতে হবে। পরিস্থিতি প্রকৃতই উদ্বেগজনক এবং পরিবেশ পরিস্থিতিকে ধরে রাখতে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।” এটা ভুলে গেলে চলবে না যে টোবাকো ফ্রি ওয়েস্ট বেঙ্গল ক্যাম্পেন ফোরাম বহুবার রাজ্য সরকারকে সিওটিপিএ ২০০৩ নিয়ম না মেনে চলার জন্য চালান কার্যকরি করার জন্য অনুরোধ করেছে এবং পুলিশ এমসিআর (মাসিক অপরাধ প্রতিবেদন) এর লঙ্ঘনের প্রতিবেদনটি রেকর্ড করুন।
স্বাস্থ্য পরিষেবা বিভাগের অতিরিক্ত পরিচালক - রাজ্য স্বাস্থ্য বিভাগ এবং নোডাল অফিসার এবং তামাক নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্রের অতিরিক্ত পরিচালক ডাঃ শৈবাল বন্দ্যোপাধ্যায় প্রাপ্ত অভিযোগের বিষয়ে রাজ্য সরকারের প্রতিশ্রুতিবদ্ধতার স্পষ্টভাবে উল্লেখ করেছেন। তিনি এই কথাটি বলেছিলেন যে রাজ্য সরকার কলকাতাকে একটি ‘সিওটিপিএ কমপ্লায়েন্ট সিটি’ করার পরিকল্পনা কার্যকর করার চেষ্টা চালাচ্ছে। তামাক বর্তমানে অকাল মৃত্যুর অন্যতম প্রধান কারণ হিসাবে বিবেচিত। বিশ্বব্যাপী, তামাকের ব্যবহারের কারণে প্রতি বছর প্রায় কোটি মানুষের মৃত্যু ঘটছে এবং বর্তমান প্রবণতাগুলি দেখায় যে তামাকের ব্যবহারের ফলে ২০৩০ সালের মধ্যে বার্ষিক কোটির বেশি লোক মারা যেতে পারে। কলকাতা শহর সর্বদা তার চিন্তাভাবনা এবং অনুশীলনের ক্ষেত্রে অনুকরণীয় হয়ে উঠেছে বলে ভাবা যেতে পারে যা বিশ্বকে আগামী দিনগুলিতে পথ দেখাবে। ঠাকুরের কলকাতায় একটি উজ্জ্বল রোদ, আকাশ তামাকমুক্ত পরিবেশের দাবি করে। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *