প্রথম পাতা বিনোদন

কোলাহল ও পতিতাদের নিয়ে সমাজের মূলস্রোতে আনতে দ্বিতীয় অধ্যায় শুরু করল অভিনেতা নাইজেল

অম্বর ভট্টাচার্য, তকমা, কলকাতা, ৮ই জানুয়ারি ২০১৯ ঃ          নাইজেল আক্কারা নামটা একসময় খুবই আলোচিত ছিল সকলের মুখে। সংশোধনাগারে থাকাকালীন অলোকানন্দা রায়ের হাত ধরে বাল্মিকি প্রতিভায় নজর কেড়েছিলেন নাইজেল। তারপর ঋতুপর্ণার সাথে প্রথম অভিনয় জগতে পা রাখেন মুক্তধারায়। সেদিন থেকে নাইজেলের জীবনে আসে এক পরিবর্তন।সমাজের অবহেলিতদের পাশে এবার দ্বিতীয় অধ্যায় শুরু করল নাইজেল। তবে এইদিনে নাইজেল কিন্তু অলোকানন্দা রায়ের কথা ভোলেন নি।এদিনের অনুষ্ঠানে তিনি অলোকানন্দার আশির্বাদের জন্য আমন্ত্রণ করেছিলেন। এবার নাইজেল উত্তর কলকাতার পতিতালয় সোনাগাছির যৌনকর্মীদের নিয়ে নাটকের ওয়ার্কশপের আয়োজন করেছিলেন। এই নাটকের ওয়ার্কশপে পতিতাদের সাথে অংশগ্রহণ করে কোলাহলের সদস্যরা। কোলাহল তাদের প্রথম নাটক উপস্থাপনা করে ৪ঠা জুন ২০১৪ সালে। এবার কোলাহল ও পতিতাদের নিয়ে মঞ্চস্থ হতে চলেছে “ঝড়াফুলের রূপকথা”। “ঝড়াফুলের রূপকথা” শুধুমাত্র এক পতিতা জীবন নয়, এই নাটকে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের রক্তকরবীর নন্দিনী, নটির পূজার শ্রীমতী, তাশের দেশের রুইতন ও হরতন একত্র চরিত্রের প্রতিফলন।এক পতিতালয় সোনার শহরে থাকা আদর ও গোগোল নাটকের মূল চরিত্র। তাদের মুখে শোনা যাবে সেখানকার বিভিন্ন চরিত্রের রূপকথা। কাহিনী ও নির্দেশনায় চিরঞ্জীব গুহ, সুরকার প্রজ্ঞ দত্ত ও ভাবনা এবং প্রযোজনায় নাইজেল আক্কারা। নাটকে গান গেয়েছেন প্রথমা দে, অরুনাশিষ রায় ও অমিতাভ আচার্য্য এবং নৃত্য নির্দেশনায় শিবায়ন গাঙ্গুলি। আগামী ২০শে জানুয়ারিতে “ঝড়াফুলের রূপকথা” মঞ্চস্থ হবে মহাজাতি সদনে সন্ধ্যা ৬.৩০ মিনিটে। এই উদ্যোগে সাহায্য করেছে দুর্বার মহিলা সমন্বয় কমিটি। এমন একটা উদ্যোগ সমাজে এক নতুন দিগন্ত খুলে দেবে। এই অন্ধকার জগতে থাকা জীবনের মধ্যেও যে লুকিয়ে থাকা প্রতিভা থাকতে পারে তা প্রথমবার প্রকাশ পাবে মঞ্চে। এব্যাপারে নাইজেল বলে অনেক সমাজসেবী সংস্থাদের সাথে আলোচনা হয়েছে কিন্তু সবারই কিছু না কিছু সর্ত প্রয়োগ করেছে যা নাটকের ক্ষেত্রে মেনে চলা কঠিন, কেউ বলেছে মুখ দেখানো যাবে না, কেউ বলেছে নাম দেওয়া যাবে না। কিন্তু আমার বক্তব্য হল যদি এই জীবনকে একটা মূল স্রোতে আনতে হয় তবে এগুলো উপেক্ষা করে করতে হবে। সেক্ষেত্রে দুর্বার মহিলা কমিটি যথেষ্ট সহযোগিতা করেছে। তারা যে এই পতিতাদের নিয়ে মূল স্রোতে ফেরানোর জন্য কাজ করে তা পরিষ্কার করে দিয়েছে।নাচে গানে জমজমাট হবে “ঝড়াফুলের রূপকথা”। প্রতিভা লুকিয়ে রাখা যায় না, প্রকাশ পাবেই। ওয়ার্কশপে কোলাহলের কলাকুশলীদের সাথে বেশ পাল্লা দিয়ে অভিনয় ও নাচ করল অন্ধকারে থাকা সমাজের অবহেলিত এই পতিতারা। ভাবলে অবাক লাগে।তাদের দেখার পর হয়তো লজ্জ্বাও হবে এই সুশীল শিক্ষিত সমাজের। যা আমরা অর্থ অপচয় করে করতে পারি না তারা কি সাবলীলভাবে করে দেখাচ্ছে আর তাদের নিয়ে আমরা মন্তব্য করি, বাঁকা চোখে দেখি।নাইজেল দেখিয়ে দিল এভাবেও বদলানো যায় সমাজকে। নিজেও এবার মঞ্চে আসবেন জানালেন নাইজেল। প্রচারে ঃ রিদ্যম এন্টারটেনমেন্ট। ছবি ঃ বিশ্বজিত সাহা।

Leave a Reply