প্রথম পাতা রাজনীতি

রাজপুর সোনারপুর পৌরসভার ৬ নং ওয়ার্ড থেকে অসন্তোষের কারণে বহু তৃণমূল কর্মী বিজেপিতে যোগ দিল

অম্বর ভট্টাচার্য, এবিপিতকমা, সোনারপুর (গড়িয়া স্টেশন), ১৪ই মার্চ ২০১৯ ঃ  রাজপুর সোনারপুর পৌরসভার ৬ং ওয়ার্ড নিয়ে বহুদিন ধরেই পুরমাতা দিপালী নস্কর ও তাঁর স্বামী শান্তনু নস্করের সাথে বনাবনি হচ্ছিল না ওয়ার্ডের তৃণমূল কর্মী ও ওয়ার্ডবাসীদের সাথে। বহুবার নির্বাচনের আগে ও পরে শান্তনু নস্করের সাথে কথাকাটাকাটি ও উত্তেজনা তৈরি হয়। এমনকি বিধায়কের কর্মী সম্মেলনের মধ্যেও কর্মীদের সাথে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। তবুও দুবারের পৌরমাতা দিপালী নস্কর কিন্তু ওয়ার্ডের মানুষের সাথে কোন যোগাযোগ নেই, কোন পরিষেবা নেই, কর্মীদের সাথে দেখা করার কোন সময় নেই এই অভিযোগে ফুঁসছিল গোটা ওয়ার্ডের কর্মীরা। এছাড়া উন্নয়নের দিক থেকে পুরমাতার উদ্যোগের অভাব তো আছেই।বহু কর্মী দিশাহারা হয়ে পরে এবং হতাশায় ভুগতে থাকে। তাদের কোনভাবে বুঝিয়ে ধরে রাখার চেষ্টাও চালায় ওয়ার্ডের সভাপতি শ্রীমন্ত নস্কর কিন্তু এই লোকসভা নির্বাচন আসতেই তাদের বিজেপিতে যোগ দেওয়ার হিরিক ওঠে। একসময়ের পুরমাতা ও তাঁর স্বামীর খুব ঘনিষ্টরা বিজেপিতে যোগ দিয়েছে বলে শোনা যাচ্ছে। ইতিমধ্যে ওয়ার্ডে আওয়াজ উঠেছে বর্তমান পুরমাতাকে আগামী নির্বাচনে পরিবর্তন করতে হবে।পুর পরিষেবা নিয়ে সকলের মধ্যেই ক্ষোভ দেখা যাচ্ছে। যারা তৃণমূল থেকে বিজেপিতে যোগ দিয়েছে তাদের প্রশ্ন করলে তারা জানায় প্রায় ১০ বছর সমঝতা করে চলার চেষ্টা করেছি কিন্তু আর না, ওয়ার্ডে উন্নয়ন নেই, পরিষেবা নেই, সহযোগিতা নেই, যোগাযোগ নেই, ভাল ব্যবহার নেই আর কত নেই বলবো? এত নেই নিয়ে চলা যায় না, তাই এবার পরিবর্তনের আশায় বিজেপিতে যোগ দিয়েছি। গত পুর নির্বাচনে মানুষ পুনরায় না চাইলেও আমরা অনুরোধ করেছিলাম ভোট দেওয়ার জন্য। মানুষ আমাদের কথা শুনে পুনরায় নির্বাচিত করেছে, এরপর আমাদের তিষ্টতে দেয় নি মানুষ। মানুষকে জবাব দিতে দিতে নাজেহাল হওয়ার জোগাড় হয়েছে। আর না, আমরা এবার ওয়ার্ডে পরিবর্তন এনেই ছাড়বো। তাদের বক্তব্য এবার লোকসভা নির্বাচনের ফলেই তৃণমূল নেতৃত্ব বুঝতে পারবে ২০২০ সালের পুরভোটে কি ফল হতে চলেছে। ওয়ার্ড থেকে তৃণমূলের আর সেভাবে এগিয়ে থাকা হবে না। বিজেপির ভোট এবার অনেক বাড়বে।

Leave a Reply