You cannot copy content of this page

ইমামি এবার “মন্ত্র” দিয়ে অভিনেত্রী অনন্যার হাতে আগামীকাল থেকে চমক এনে দিল বাঙালির রান্নাঘরে

অম্বর ভট্টাচার্য, এবিপিতকমা, কলকাতা, ২০শে আগস্ট ২০১৯ : ইমামি সংস্থা একটি বহুজাতিক সংস্থা হিসাবে পরিচিত। এতদিন তারা মাথার তেল থেকে ত্বকের ক্রিম ও রন্ধন তেলের সাথে আরও বেশ কিছু ব্যবসার সাথে যুক্ত ছিল কিন্তু এবার ঠিক পুজোর আগে নতুন চমক দিল বাঙালির রান্নাঘরে।এতদিন তাদের বাজারে সরষের তেল ও রাইসব্র্যান তেল নিয়ে এসেছিল কিন্তু এবার তারা ঠিক পুজোর আগে নিয়ে এল এমন এক “মন্ত্র”। কি সেই “মন্ত্র”? ইমামির সেই “মন্ত্র”-র চমক নিয়ে বলতে গিয়ে ইমামি সংস্থার অন্যতম ডিরেক্টর আদিত্য আগ্রওয়াল জানান, ইমামি এমন একটা সংস্থা যারা বিশ্বাস করে সচ্ছতা ও শুদ্ধতা। এতবছর বাজারে বিভিন্ন সেক্টরে ইমামি এই দুই বিশ্বাসের উপর ব্যবসা করছে। এবার ইমামি বাজারে আনছে “ইমামি হেলদি অ্যান্ড টেস্টি মন্ত্র”। বর্তমানে প্রযুক্তির উন্নতির জন্য সব কিছুর পরিবর্তন ঘটেছে কিন্তু পরিবর্তন ঘটেনি স্বাদে। বাজারে মোমো এসেছে, ফাস্ট ফুড এসেছে ঠিকই কিন্তু ঝালমুড়ি বা লুচির স্বাদ বাঙালি ভোলে নি। তাই এবার ইমামি গৃহিণীদের রান্নাঘরের যাবতীয় মশলা

এনেছে আগামীকাল থেকে। ইমামি এই মুহুর্তে বাজারে নিয়ে এসেছে হলুদগুড়ো, লঙ্কাগুড়ো, জিরেগুড়ো, ধনেগুড়ো, চিকেন মশলা, মাংস মশলা, ডালনা মশলা, মালাইকারী মশলা, সাহি গরম মশলা এবং তিনধরনের স্বাদ বদলানোর জন্য ইন্ডিয়ান টেস্টমেকার, চাইনিজ টেস্টমেকার ও ইতালিয়ান টেস্টমেকার।এই মশলার স্বাদ ও গন্ধ প্রতিটা বাঙালি খাবারের স্বাদ বদলে দেবে। এই মশলা বাজারে আসার ফলে ইমামি প্রতিটা মানুষের বাড়িতে আরও ৩৫% বেশি জায়গা করে নেবে। আগামী ৫ বছরে ইমামি মশলা ১৫০০ কোটি টাকার ব্যবসা করবে বলে আশা রাখি। এই মশলা হলদিয়ায় নিজস্ব কারখানায় তৈরি, ১০০ শতাংশ প্রাকৃতিক, কোন রং ব্যবহার করা হয় নি। ইতিমধ্যে এই মশলা “সুপিরিয়র টেস্ট পুরস্কার” লাভ করেছে। বর্তমানে ১২ ধরনের মশলা দিয়ে শুরু হচ্ছে, ধিরে ধিরে আরও আইটেম বাড়বে। প্রথম অবস্থায় আমরা ৪০ – ৫০ হাজার রিটেল দোকান দিয়ে শুরু করছি কিন্তু এই অর্থনৈতিক বর্ষের শেষে রাজ্যের প্রায় সব দোকানেই পাও্য়া যাবে।

এই নতুন ব্যবসার সূচনার ফলে প্রথম পর্বে প্রায় ২০০ জনের কর্মসংস্থান হতে চলেছে। আমাদের সংস্থার ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডার রয়েছেন অমিতাভ বচ্চন ও সালমান খান এবার মশলার ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডার অভিনেত্রী অনন্যা চ্যাটার্জি। এই বাছাইয়ের পিছনেও একটা কারণ আছে। আমরা প্রথম অবস্থায় শুধুমাত্র পশ্চিমবঙ্গ দিয়ে শুরু করছি তারপর সময়ের সাথে সারা ভারতে প্রসার ঘটাবো। এই মুহুর্তে পশ্চিমবঙ্গের মুখ বলতে একটাই নাম অনন্য চ্যাটার্জি কারণ তিনি জাতীয় পুরস্কার জয়ী অভিনেত্রী। প্রচারে : পার্ফেক্ট রিলেশন। ছবি : বিশ্বজিত সাহা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *