You cannot copy content of this page

গড়িয়া স্টেশনে দীর্ঘদিনের রাস্তার দাবিতে আজও রাস্তা অবরোধ হয়

অম্বর ভট্টাচার্য, এবিপিতকমা, সোনারপুর, ২৩শে জুন ২০১৯ : গড়িয়া স্টেশন এলাকায় রাজপুর সোনারপুর পৌরসভার ২ নং ওয়ার্ড ও ৩ নং ওয়ার্ডের মধ্যবর্তী পুলিশ পাড়ার রাস্তা বহু মাস ধরে বেহাল অবস্থায় পড়ে আছে। নির্বাচনের আগে রাস্তা খুড়ে হাইড্রেনের কাজ হয়। তার আগে থেকেই এই রাস্তা চলার অবস্থায় ছিল না। সমস্যা তো অন্যত্র, রাস্তাটা ২ নং ও ৩ নং ওয়ার্ডের মধ্যবর্তী হওয়ায় সমস্যা বাড়ছে। ২ নং ওয়ার্ডের পুরপিতা তেমন উদ্যোগ নিচ্ছেন না বলে অভিযোগ তোলেন এই অঞ্চলের ২ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দারা।ঠিক একইভাবে অভিযোগ তোলেন এই অঞ্চলের ৩ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দারা। দুপক্ষই অভিযোগ করেন দুটো ওয়ার্দের মাঝাখানে থাকার ফলে কোন পৌর প্রতিনিধি দায়িত্ব নিয়ে রাস্তার কাজ করছে না আর আমাদের চলাচলে প্রাণ বেরোচ্ছে। এই অবস্থার থেকে কবে যে মুক্তি পাবো তা আমাদের কাছে অজানা। রাস্তার যা অবস্থা তাতে একটা রিকশা বা অটো চলার মত অবস্থা নেই। পুর পরিষেবার কি হাল, উন্নয়নের কি নমুনা। এই প্রতিবাদে এলাকার সকল মহিলা রাস্তায় নেমে পথ অবরোধ করে। তারা দাবি করে রাস্তার হাল না বদলালে এই রাস্তা দিয়ে কোন যান চলাচল করতে দেওয়া হবে না। দুদিন ধরে এই অবরোধ চলে। কিন্তু পার্শবর্তী ওয়ার্ডে রাজপুর সোনারপুর পৌরসভার ৪ নং ওয়ার্ডের পুরপিতা তথা রাজপুর সোনারপুর পৌরসভার পূর্ত দপ্তরের সি আই সি বিভাস মুখার্জির কোন প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায় নি।রাস্তা অবরোধকারীরা জানান এই আন্দোলন শুরু হয়েছে যখন রাস্তার হাল না ফেরা অবধি এই আন্দোলন চলবে।তারা আরও ক্ষোভ প্রকাশ করেন বাড়ির জন্য পুরকর লাগামহীন হয়ে গেছে কিন্তু পরিষেবা পাবে না মানুষ তা তো চলতে পারে না। এই কারণেই শোনা গেল যে বর্তমান পুর উপ প্রধানকে দুর্নীতির অভিযোগে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।একই অভিযোগ তো ২ নং ওয়ার্ডেও আছে। এখানে যেভাবে তোলাবাজির অত্যাচার চলে সেব্যাপারে কে শাস্তির উদ্যোগ নেবে।বাড়ি করতে গেলে, পাঁচিল দিতে গেলে, জমি কিনতে গেলে সবতেই টাকার জুলুমবাজি চলে। আর এই কারণে মানুষের ক্ষোভ এমন জায়গায় গিয়ে পৌঁছেছে যা তার প্রতিফলন হয়েছে ভোট বাক্সে। এবার পুরভোটে এই ওয়ার্ড থেকে তৃণমূল জিতে দেখাক না। কাজ যখন হবেই না আর তোলাবাজি চলবেই তখন বদলেই দেখবো আমরা।