You cannot copy content of this page

রাজপুর সোনারপুর পৌরসভার ২৮ নং ওয়ার্ডে একমাত্র ভরসা গোপাল দাস

অম্বর ভট্টাচার্য, এবিপিতকমা, সোনারপুর, ১১ই মার্চ ২০২০ : পৌরসভা নির্বাচন যত সামনে এগিয়ে আসছে তত জল্পনা বেড়ে যাচ্ছে। সোনারপুর উত্তর বিধানসভার অন্তর্গত রাজপুর সোনারপুর পৌরসভার ১৭টা ওয়ার্ডের প্রার্থী বাছাই-এর আগে জোর জল্পনা শুরু হয়ে গেছে। সাম্প্রতিক রাজপুর সোনারপুর পৌরসভার ২৮ নং ওয়ার্ডের অবজারভারের সভায় উত্তাল হয়ে ওঠে একাধিক প্রার্থীর নাম। অনেকে এই সভায় নিজেই নিজের নাম প্রস্তাব করে। সভায় গতবারের তৃণমূল প্রার্থী নমিতা দাসের নাম যেমন এই সভায় ওঠে ঠিক একই ভাবে অরুণ চক্রবর্তী, বাপি নাগ, প্রদীপ চক্রবর্তী, দেবপ্রসাদ ঢালি, নিমাই বিশ্বাসের সাথে নরেন্দ্রপুর টাউন সভাপতি গোপাল দাসের নাম ওঠে। এই ওয়ার্ডে বহু অভিযোগ তোলা হয় বিদায়ী পৌরমাতা নমিতা দাসের নামে।

প্রদীপ চক্রবর্তী সরাসরি পুকুর ভরাটের অভিযোগ তোলে। কিন্তু সেভাবে কোন তথ্য ছাড়াই অভিযোগ তোলা হয়। বহুবার প্রদীপ চক্রবর্তী এই পুকুর ভরাট নিয়ে সরব হয়েও আজও পর্যন্ত কোন প্রমাণ দিয়ে উঠতে পারেন নি। এছাড়া সভাতে আরেকজনের নাম ওঠে। ওয়ার্ডের জয়হিন্দ বাহিনীর সভাপতি মিঠুন মিত্রের নাম উঠলে তিনি সভায় উঠে সোজা গোপাল দাসের সমর্থনে নিজের প্রস্তাবিত নামের বিরোধিতা করেন। সভায় অবজারভারের ভুমিকায় উপস্থিত ছিলেন গৌতম পাইন এছাড়া ছিলেন বিশ্বজিত দাস, মানু, মিঠু সোনা, প্রদীপ চক্রবর্তী সহ অনেকে।

কিন্তু নমিতা দাস ওয়ার্ডে যে উন্নয়ন করেছেন তা কিন্তু অস্বীকারের জায়গা নেই। ওয়ার্ডে যেমন রাস্তা হয়েছে, তেমনই ড্রেন, আলো থেকে পাকা ও ঢালাই রাস্তা হয়েছে। এই ওয়ার্ডে প্রতিটা সামাজিক অনুষ্ঠানে পৌরমাতা উপস্থিত থেকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন।ওয়ার্ডে নতুন প্রজন্মের জন্য বিভিন্ন সময়ে ক্রিকেট ও ফুটবল প্রতিযোগিতার আয়োজন করে থাকেন। এছাড়া নিজের ওয়ার্ডে পৌরসভার সহযোগিতায় একটা নতুনত্ব কায়দায় শিশু উদ্যান করেছেন।কিন্তু এবার এই ওয়ার্ড সাধারণ হয়ে যাওয়ার ফলে তাঁর জায়গায় যোগ্য প্রার্থী হিসাবে তাঁর দাদা নরেন্দ্রপুর টাউন সভাপতি গোপাল দাসের উপর ভরসা করছেন অনেকে। গোপাল দাস স্বল্পভাষী মানুষ ও সকলকে নিয়ে চলার মানসিকতা রাখেন। দীর্ঘদিন তৃণমূল রাজনীতির সাথে যুক্ত থাকার ফলে এবং একজন দক্ষ সংগঠক হিসেবে বিধায়ক ফিরদৌসী বেগম থেকে সোনারপুর উত্তর বিধানসভার মূল সংগঠক নজরুল আলি মন্ডলের ভরসা অর্জন করেছেন।অধিকাংশ মানুষ তাঁর উপর ভরসা রাখেন এই ওয়ার্ড থেকে প্রার্থী করলে ওয়ার্ড নিশ্চিত থাকবে তৃণমূলের। গত লোকসভা নির্বাচনে দোলের একাংশ বিরোধিতা করে বিপাকে ফেলতে চেয়েছিল পৌরমাতা ও গোপাল দাসকে। সেখানেও মানুষ দেখিয়ে দিয়েছে যে তাদের নমিতা দাস ও গোপাল দাসের উপর তাদের কতটা আস্থা আছে। সেই একই আস্থা হয়তো রাখতে চলেছে দল এবারের পৌর নির্বাচনে গোপাল দাসকে প্রার্থী হিসেবে বাছাই করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *