You cannot copy content of this page

ফ্যানফাইট দেশের প্রথম সারির অনলাইন ফ্যানটাসি ক্রিকেট গেমিং প্ল্যাটফর্ম। আইপিএল সিজন ২০২০র শেষে সংস্থা চাইছে ১ কোটি সাবস্ক্রাইবার

নিজস্ব প্রতিনিধি, এবিপিতকমা, কলকাতা, ১৮ই ফেব্রুয়ারি ২০২০ : ভারতের অন্যতম প্রথম সারির অনলাইন ফ্যানটাসি ক্রিকেট গেমিং প্ল্যাটফর্ম ফ্যানফাইট। আসন্ন আইপিএল সিজনের শেষে তারা তাদের গ্রাহক সংখ্যা এক কোটিতে পৌঁছে দিতে পারবে বলে রীতিমতো আত্মবিশ্বাসী। ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) ১৩ তম সংস্করণ শুরু হতে আর দুমাসও বাকি নেই। ইতিমধ্যে এনিয়ে উত্তেজনা তৈরি হতে শুরু করেছে। ভারতে আইপিএল উদযাপিত হয় একটা উৎসবের মতো। এটা ফ্যানফাইটের কাছেও সমানভাবে  গুরুত্বপূর্ণ একটা ইভেন্ট।

আইপিএল চলার সময় হটস্টারের মতো গুরুত্বপূর্ণ ওটিটি প্ল্যাটফর্মের সঙ্গে ফ্যানফাইটের সম্পর্কটা একটা নজিরগড়া অভিজ্ঞতার সমান। হটস্টারই ফ্যানফাইটকে বহুগুণে বাড়িয়ে তুলতে সাহায্য করেছে। ২০১৮ সালে ফ্যানফাইটের গ্রাহক ছিল ১০ লক্ষ। আইপিএল ২০১৯এ সেটা বেড়ে হয় ৬০ লক্ষ। এক বছরে বৃদ্ধি ৬ গুণ। সেই থেকে প্রতি বছর এক আইপিএল থেকে আরেক আইপিএলে গ্রাহক সংখ্যা কত বাড়ল তার হিসাব রাখতে শুরু করেছে ফ্যানফাইট। এটা একটা ঐতিহ্যে পরিণত হয়েছে। এখন ফ্যানফাইট তাকিয়ে আছে ২০২০র আইপিএলের দিকে। এবছর আইপিএল শুরু হবে ২৯ মার্চ। এবং ফাইনাল হবে ২৪ মে। ।

আইপিএল চলার সময় হটস্টার ফ্যানফাইটকে রাখে সুবিধাজনক একটা অবস্থানে। কারণ কারা তাদের সাবস্ক্রাইবার, সেবিষয়ে স্পষ্ট একটা সীমারেখা টানা রয়েছে হটস্টারের। এর ফলে কাদের টার্গেট করা হবে সেবিষয়টি বেশ কার্যকরী হয়। এবং এই প্ল্যাটফর্মে সাবস্ক্রাইবারদের যোগ দেওয়ানোর কাজে সাফল্যের হারও অত্যন্ত বেশি। ম্যাচগুলো শুরু হলেই, সেগুলো দেখানো হবে স্টার স্পোর্টস নেটওয়ার্কে হিন্দি, ইংরেজি, তামিল, তেলুগু, কন্নড় ও বাংলায়। বৈচিত্রপূর্ণ ভারতের দর্শকেরা এইসব ম্যাচগুলি নানান ভাষায় দেখার সুযোগ পাবেন। এটাই ফ্যানফাইটের সামনে এনে দেবে একটা অনন্য সুযোগ যাতে সব ভাষায় কনটেন্ট তৈরি করা যাবে এবং সারা দেশের দর্শকদের চাহিদার দিকে নজর দেওয়া যাবে।

আইএসবি অ্যালুমনি অখিল সুহাগ ফ্যানফাইট চালু করেছিলেন। ভারতে জনপ্রিয় খেলা ক্রিকেট, ফুটবল ও কাবাডির দ্শকদের চাহিদা মেটাতে।

অন্য সব প্ল্যাটফর্ম থেকে ফ্যানফাইট এই অর্থে আলাদা যে, তারা প্রতিদিন শুধু নগদ পুরস্কারই দেয় না, দ্রুত সেই নগদ তুলে নেওয়ার সুযোগও দেয় এবং বন্ধুদের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় নামার সুযোগ করে দেয়। ফ্যানফাইট সবচেয়ে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে।লাইভ গেম ও তার আপডেট যাতে সবচেযে কম সময়ে খেলোয়াড়দের কাছে পৌঁছে যায় এবং তাদের জয়ের সম্ভাবনা তৈরি করে দেয, সেটা নিশ্চিত করে ফ্যানফাইট।

এবিষয়ে ফ্যানফাইটের সিইও অখিল সুহাগ বলেন, ভারতের যে কোনও ক্রিকেট ফ্যানের মতো আমরাও একইভাবে অস্থির হয়ে পড়েছি। তাকিয়ে রয়েছি আইপিএল ২০২০র দিকে। গত চার বা পাঁচ বছরে ভারতে ক্রিকেটের জনপ্রিয়তা বেড়েছে বহু গুণ। এর ফলে মোবাইলে খেলা দেখার ব্যাপারটা একটা বিস্ফোরণের মতো ছড়িয়ে পড়েছে। ফলে দেশে ডাটার পিছনে খরচ কমেছে। প্রতিটি আইপিএল সিজনে আমরা বাড়ছি চার থেকে ৬ গুণ হারে। আশা করছি, এবছরের আইপিএলেও একই প্রবণতা বজায় থাকবে। আমাদের এই বিশ্বাস রয়েছে যে, ২০২০র আইপিএলসের শেষে আমরা আমাদের ১ কোটি গ্রাহকের লক্ষ্যমাত্রায় পৌঁছে যাব। প্রচারে মিডিয়া শাইন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *