রাজনীতি

লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূল প্রার্থী মিমি চক্রবর্তী বুঝেই গেছে সোনারপুর উত্তরের উপর তাঁকে বেশি ভরসা করতে হবে

অম্বর ভট্টাচার্য, এবিপিতকমা, সোনারপুর, ১৩ই এপ্রিল ২০১৯ ঃ         যাদবপুর লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূলের প্রার্থী মিমি চক্রবর্তী প্রচার শুরুর পরেই টালিগঞ্জ, যাদবপুর, ভাঙড় বিধানসভার উপর সেভাবে ভরসা করা যাবে না। এর প্রধান কারণ যাদবপুর বিধানসভা ও ভাঙড় বিধানসভায় সিপিএম প্রার্থী বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে। অনুপমের গুরুত্বের তালিকায় রয়েছে বারুইপুরের একটা অংশ ও সোনারপুর দক্ষিণ। টালিগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্রের অবস্থা আধা আধা, জয়ের মার্জিন খুব বেশি হবে না। শেষ পর্যন্ত সোনারপুর উত্তর থাকছে পড়ে যার উপর বেশি নির্ভর করা ছাড়া আর কোন উপায় নেই। টালিগঞ্জ বিধানসভার বিধায়ক তথা মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাসের উপর গুরু দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে তাই তিনি সেভাবে টালিগঞ্জে সেভাবে নজর দিতে পারছেন না। হয়তো সব শেষে টালিগঞ্জকে তিনি ধরবেন। যেহেতু যাদবপুর লোকসভা কেন্দ্রের ভোট একেবারে শেষদিন তাই সেভাবে নজর দিচ্ছেন না। মিমি ইতিমধ্যে সোনারপুর উত্তরে বেশ কয়েকটা কর্মীসভায় উপস্থিত হয়েছেন যা অন্য বিধানসভার তুলনায় অনেক বেশি। রোড শো প্রায় শেষের দিকে। খেয়াদহ, বনহুগলী, বোড়াল, নরেন্দ্রপুরে প্রচারের কাজ শেষ হয়ে গেছে, এখন শুধু বাকি গড়িয়া স্টেশন। গড়িয়া স্টেশনে মিমি প্রচার করবে ২২শে এপ্রিল।তবুও মিমি আজ নীল ষষ্ঠীর দিনে মহামায়াতলা মন্দিরে নিজে পুজো দিতে হাজির হয়ে গিয়েছিলেন। মিমির সাথে ছিলেন স্থানীয় বিধায়ক ফিরদৌসী বেগম, নজরুল আমি মণ্ডল, পৌরমাতা নমিতা দাস, নরেন্দ্রপুর টাউন তৃণমূলের সভাপতি গোপাল দাস, সুমন ব্যানার্জি সহ স্থানীয় তৃণমূল নেতা ও কর্মীরা।আজ কুসুম্বায় প্রচার করে মিমি চক্রবর্তী। তাঁকে মঞ্চে সম্বর্ধনা তুলে দেয় পৌরপিতা রঞ্জিত মণ্ডল। মিমিকে দেখতে অসংখ্য মানুষ উপচে পড়ে।

Leave a Reply